মিল্কভিটা কর্মচারী মামুন: অপহরন-হত্যা-গুম নাটক, অতঃপর আটক

0
159

আমার লক্ষ্মীপুর ডট কম, রামগঞ্জ, মাহমুদ ফারুক, ১৩ আগষ্ট: মামুন মাতাব্বর (২৮)। জেলার রায়পুর উপজেলার চর আবাবিল গ্রামের মাতাব্বর বাড়ীর প্রয়াত মাঈন উদ্দিন মাতাব্বরের ছেলে। চাকুরী করেন, রামগঞ্জ উপজেলাস্থ দুগ্ধ উৎপাদন কেন্দ্র (মিল্ক ভিটায়)। সম্প্রতি তিনি মাইজভান্ডার শরীফের মুরিদ হলে এলোমেলো চলাফেরা করতেন। হটাৎ হটাৎ দৈনন্দিন কাজ ফেলে চলে যেতেন অন্যত্রে। আধ্যাত্মিক কথাবার্তা বলে বেড়াতেন।
২৬ জুলাই রাত ১০টার পর হটাৎ নিরুদ্দেশ হয়ে যান মামুন মাতাব্বর। মিল্কভিটায় কর্মরত অন্য অফিসারসহ তার নিকটাত্মীয় দুশ্চিন্তায় পড়েন।
তার নিখোঁজের দুই দিন পর ২৮ জুলাই মিল্কভিটার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রামগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।
নিখোঁজ মামুন মাতাব্বরের ছোট ভাই সুমন মাতাব্বরসহ পরিবারের লোকজন দাবী করেন একই অফিসের সিকিউরিটি গার্ড তাজুল ইসলাম কাজল তার ভাইকে গুম করেছে। পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে তাজুল ইসলাম কাজলকে আটক করলেও সন্দেহজনক কিছু পায়নি।
এদিকে একটি মহল বিষয়টি নিয়ে ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টায় লিপ্ত থাকে।
এক পর্যায়ে মামুন মাতাব্বরের ভাই সুমন মাতাব্বর সিকিউরিটি গার্ড তাজুল ইসলাম কাজলকে আসামী করে চলতি মাসের ৯ আগষ্ট লক্ষ্মীপুর আদালতে একটি অপহরন মামলা করে।
পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তাজুল ইসলাম কাজলকে পূনরায় জিজ্ঞাসাবাদ করেও সন্দেহজনক কিছু না পেয়ে হন্যে হয়ে খোঁজ চালায় বিভিন্নস্থানে।
অবশেষে ঈদের দিন (১২ আগষ্ট) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোপন সংবাদের রায়পুর উপজেলার নিজ এলাকা থেকে মামনু মাতাব্বরকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ থানায় নিয়ে আসে।
মামুন মাতাব্বরের ভাই সুমন মাতাব্বর জানান, ঘটনার দিন রাতে তার ভাই মামুন মাতাব্বর মাইজভান্ডার যাওয়ার পথে মিরসরাই এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হয়। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার স্থানীয় একটি হসপিটালে ভর্তি করার পর মামুন হসপিটাল থেকে সবার অগোচরে বের হয়ে এলোমেলো ঘুরাফেরা করতে থাকে। কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে বিভিন্ন স্থানে চলে যায়। অবশেষে বিভিন্ন মিডিয়ার মাধ্যমে তার খবর পায় আত্মীয়স্বজনরা।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান রামগঞ্জ থানার এস আই আবদুল হান্নান। তিনি গিয়ে শনাক্ত করার পর রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনও ছুটে যান রায়পুরে মামুন মাতাব্বরের বাড়ীতে।
রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, আমরা কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় রায়পুর উপজেলার চর আবাবিল এলাকা থেকে মামুন মাতাব্বরকে উদ্ধার করা হয়েছে। আমরা মামুন মাতাব্বরের ভাই সুমন মাতাব্বরের সাথে কথা বলে জেনেছি তার বড় ভাইয়ের কিছু সমস্যা রয়েছে। এলোমেলো কথা বার্তা বলছে। সবার উপস্থিতিতে তার নিকটাত্মীদের কাছে মামুন মাতাব্বরকে হস্তান্তর করা হয়েছে।
নিউজ: মাহমুদ ফারুক।